নারায়ণগঞ্জ টাইমস | Narayanganj Times

বুধবার,

২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

আইভীর কাছে ১০ প্রশ্ন, উত্তরে যা বললেন 

নুসরাত জাহান সুপ্তি

প্রকাশিত:২২:৪৩, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

আইভীর কাছে ১০ প্রশ্ন, উত্তরে যা বললেন 


নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ২০২১-২০২২ অর্থবছরে  ৬৮৮ কোটি ২৩ লাখ ১৭ হাজার ৩৫৬ টাকার বাজেট ঘোষণা করেছেন মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) বাজেট ঘোষণা পরবর্তী নগরবাসী ও সাংবাদিকরা বেশ কিছু প্রশ্ন রাখেন নগরমাতার কাছে। এরমধ্যে ১০টি প্রশ্নের উত্তরে বিভিন্ন সমস্যা ও সমাধানের বিষয়ে কথা বলেন তিনি। 

 


নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শরীফউদ্দিন সবুজ বলেন, আসন্ন নির্বাচনের মেয়র পদে আপনি কি প্রতিদন্ধি হবেন? নির্বাচন করলে আওয়ামীলীগ থেকে কি মনোনয়ন চাইবেন? মেয়র নিজের নির্বাচন প্রসঙ্গে বলেন, আমি তো নৌকার মানুষ। আমি মায়ের পেট থেকে শুনে জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু শুনে আসতেছি। নৌকা ছাড়া অন্যকিছু, কেন চিন্তা করলেন বোধগম্য নয়। আসন্ন নির্বাচনে আমি অবশ্যই মনোনয়ন চাইবো। আমাকে যদি দল মনোনীত করে আমি আপনাদের সহযোগিতায় নৌকা  নিয়ে নির্বাচন করতে চাই। 

 


সিনিয়র সাংবাদিক ওহিদুল হক খান প্রশ্ন রেখে মেয়রের কাছে অনুরোধ করেন শহরে যাতায়াতে যাত্রীদের ভোগান্তি হ্রাসে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য। প্রশ্ন উত্তরে মেয়র বলেন, শহরে যাতায়াত ব্যবস্থা সহজ করতে সিটি সার্ভিস ও যানজট নিরসনের জন্য যোগাযোগ মন্ত্রানালয় আমাদের জন্য একটি বিশেষ পরিকল্পনা করছে। 

 

 


নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সহ-সভাপতি রফিকুল ইসলাম জীবন বলেন, শহরের অস্থায়ী জলাবদ্ধতার কোন স্থায়ী সমাধান রয়েছে কি? মেয়র বলেন, জলাবদ্ধতা নিরসনে সিটি করপোরেশন ব্যাপক কাজ করেছে। তারপরেও  কিছু কিছু জায়গায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। আমরা পূর্বে কাললিয়ানি খাল বা বিসিক খাল দিয়ে শহরের পানি সড়ত। কিন্তু খাল দখল হওয়ায় পানি সহজে সড়ছে না। এ বছর বেদখল হয়ে যাওয়া এই খালের কিছু অংশ উদ্ধার করা হয়েছে। যার কারণে পানি কিছুটা নামতে পেরেছে। কিন্তু ফকির গার্মেন্টসের ওখানে এসে কাজ বন্ধ করতে হয়েছে। যেহেতু খালটি আমার সিটি করপোরেশনের বাহিরে, আমি জেলাপ্রশাসকের নিকট হতে মৌখিক অনুমতি নিয়ে খালে কাজ করেছি। তবে খালটির মাঝে ফকির গার্মেন্টসের স্থাপনা থাকায় পানি নিরসনে প্রতিবন্ধকতা তৈরী করা হয়েছে। এটা উচ্ছেদ করা জরুরি। এরসাথে খালের আরো কিছু স্থান বেদখলে রয়েছে। আমরা জেলাপ্রশাসককে উচ্ছেদের জন্য চিঠি দিয়েছিলাম। উচ্ছেদ হলে হয়তো আরো কাজ করা যাবে। এবং খালটি আমরা প্রকল্পে আনার চেষ্টা করব। সিটির বাহিরে তিনটি খাল দখলে রয়েছে। খালগুলো উদ্ধার না গেলে পানি নিরসন সম্ভব হবে না। এছাড়াও একাধিক স্থানে পানি নিরসনে ড্রেনেজ ব্যবস্থা হচ্ছে। বাবুরাইল, মাসদাইর, ইসদাইর, দেওভোগ, গলাচিপা এসব এলাকার ড্রেনে বসতবাড়ি থেকে সরাসরি সুয়ারেজ লাইন দেওয়া আছে। ফলে ড্রেন বছওে দুইবার পরিষ্কার করা হলেও বদ্ধ হয়ে পড়ে। সরাসরি স্যুয়ারেজ লাইন দেওয়ায় আমরা বেশ কিছু এলাকায় জরমিানাও করেছি। 

 


দৈনিক অগ্রবানী পত্রিকার সম্পাদক স্বপন চৌধুরী বলেন, চাষাড়ায় ফ্লাইওভার হবে কিনা? মেয়র বলেন, সিটি করপোরেশনে লিংকরোডের ছয় লেনসহ বেশ কিছু জাতীয় প্রকল্প রয়েছে। এই কারণে এখন ফ্লাইওভার করা হলেও ভেঙ্গে ফেলতে হবে পরবর্তীতে। তাই আপাতত ফ্লাইওভার করা যাবে না। 

 


ওয়াসার পানি ব্যবস্থাপনায় দূর্ভোগ  প্রসঙ্গে  ও সিটি করপোরেশন সম্প্রসারন পরিস্থিতি ও জেলায় মেট্রোরেল ও মেট্রো পলিটন  সিটি হবে কিনা, রাসেল পার্কের অবৈধ দোকানপাট উচ্ছেদ, স্ইুপার কলোনি থেকে মাদক নির্মূল প্রসঙ্গে প্রশ্ন করেন তিনজন ওর্য়াডবাসি।  তাদের প্রশ্ন উত্তরে মেয়র বলেন, নারায়ণগঞ্জ মেট্রোপলিটন সিটি করার জন্য আমরা সরকারকে তাগিদ দিয়েছি। হবে কি হবে না সেটা সরকারের স্বদিচ্ছার উপর নির্ভরশীল। নগরে সুপেয় পানি প্রদানে আমাদের কাজ চলমান রয়েছে 

 


মেয়র বলেন, বিগত আট-নয় বছর যাবৎ এনায়েতনগর, গোগনগর, কাশিপুর ও ফতুল্লার আংশিক অংশ সিটি করপোরেশনের আওতায় নেওয়ার চেষ্টা করছি। এসকল এলাকার বাসিন্ধা শহরমুখী। এছাড়াও ইউনিয়নে আমাদের প্রয়োজনে অনেক রাস্তা, ড্রেন করেছি। তবে দুঃখজনক হলেও সত্যি প্রথম ডিসি এসব এলাকার পরিস্থিতি সম্পর্কে মন্ত্রানালয়ে মিথ্যা রিপোর্ট পাঠান। আমরা আবারো সম্প্রসারণের জন্য আবেদন করেছি। জেলা প্রশাসনের নিকট মতামত চেয়েছে যা এখনো দেওয়া হয়নি। আমি অনুরোধ করব দ্রুত মতামত দেওয়া হোক। এছাড়া স্থানীয় সাংসদ চাচ্ছে না সিটি সম্প্রসারিত হোক। মন্ত্রানালয়ে জানিয়েছেন, তার এলাকা যেন তাকে না জানিয়ে সম্প্রসারিত যেন না করা হয়। অনেক জনপ্রতিনিধিও নানা কারণে করতে চায় না। মেট্রোরেল নারায়ণগঞ্জে হবে। ঢাকার পরেই নারায়ণগঞ্জে মেট্রোরেল আসবে। মেট্রো ২, মেট্রো ৪ লাইন নারায়ণগঞ্জে আসবে। সিদ্ধিরগঞ্জ ও লিংকরোড দিয়ে লাইন হবে। মাল্টি মডার্ন হাভ নারায়ণগঞ্জে হবে।  সুইপার কলোনির যারা মাদকের সাথে সম্পৃক্ত ছিল তাদের কলোনি থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে। আবার মাদকের উপস্থিতি পেলে পুলিশ প্রশাসনকে অনুরোধ করব প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণের জন্য। এছাড়া জেলার অলিগলিতে মাদক ছেয়ে গেছে। প্রশাসনের এক্ষেত্রে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। 

 


সময়ের নারায়ণগঞ্জ পত্রিকার সাংবাদিক ইমতিয়াজ আহমেদ প্রশ্ন করেন নগরের বেদখলে থাকা খাল ও মন্ডলপাড়া ব্রিজের কার্যক্রমে সম্পৃক্ত নগরবাসী ভোগান্তির প্রসঙ্গে । এ বিষয়ে মেয়র বলেন, খাল উদ্ধারের কার্যক্রম চলছে ও ব্রিজের কার্যক্রম শেষ হওয়ার পূর্বে বিকল্প সড়কটি মেরামত করে দেওয়ার নির্দেশ দেন। 

 

 


সিটি করপোরেশনে চলমান উন্নয়ন ও অবকাঠামোগত প্রকল্পের দৃশ্যমান নকশা  প্রনয়ন উম্মুক্ত করার দাবি জানান নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি মাহাবুবুর রহমান মাসুম। একইসাথে হকারদের পিছনে যে রাজনৈতিক অশুভ চক্র রয়েছে, তাদের উন্মোচন করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ করেন তিনি। 

 


প্রতি উত্তরে মেয়র আইভী বলেন, আমি আওয়ামীলীগ, জন্মগতভাবে আওয়ামীলীগ কিন্তু দলমতের উর্ধ্বে আমি মানুষের কল্যাণে কাজ করেছি। কাছের লোক বা স্বজনপ্রীতি ভেবে কাউন্সিলরদের কখনো গুরুত্ব দেইনি। আদর্শ ও নীতির বাহিরে গিয়ে আমি কোন কাজ করব না। অনেকে প্রশ্ন করেন, আইভীর গন্তব্য কোথায়? নিউজল্যান্ড? দল তাকে মনোনয়ন না দিলে কোথায় যাবে। তাদের জন্য বলতে চাই, দল সব সময় মনোনয়ন দেয় নাকি? কখনো দেয় না। আমার কি আর পদ পদবী নাই? আইভীর গন্তব্য নারায়ণগঞ্জেই। বাড়ি এখানে আমি এখানেই থাকব। সিটির প্রকল্পের বর্ননা বিলবোর্ডে প্রদর্শন করা হবে। তফসিল ঘোষণার পূর্বে কাউন্সিলরদের তাদের ওয়ার্ডের কার্যক্রম শুরুর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। নগরবাসীর চাহিদাগুলো সাংবাদিকদের তুলে ধরার অনুরোধ করেন মেয়র। 

 


দৈনিক ইয়াদের সম্পাদক মো. তোফাজ্জল প্রতি ওয়ার্ডে মাঠ তৈরীর অনুরোধ করেন। প্রয়োজনে জমি ক্রয়ের কথা বলেন। এ প্রসঙ্গে মেয়র বলেন, জমি ক্রয় বা বিক্রয়ের কোন নিয়ম নেই। তবে খাস জমি উদ্ধার করেই মাঠ করা সম্ভব কিন্তু তখন মেয়রকে দখলদার বলে সম্ভোধন করা হয়। প্রেসক্লাবের পিছনের জায়গা পৌরসভার ভিতরে ছিল। রাউজকের সাথে আমাদের মামলা চলমান থাকা অবস্থায় কিভাবে মি. কাজলকে লিজ দেয়, তিন মাসের মধ্যে পপুলারকে স্থানান্তর করে দিলো। এছাড়া ফতুল্লা স্টেডিয়ামে পৌরসভা জায়গা দান করছিল। কিন্তু সেই জায়গা প্রভাবশালী মানুষের কাছে হাত বদল করা হয়েছে। 

 


সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্ন এক কর্মী প্রশ্ন করার অনুমতি চাইলে, তাকে অফিসে যোগাযোগ করতে বলেন মেয়র। 

আরও পড়ুন : মেয়র আইভীর হুশিয়ারী


এদিকে মেয়র শহরকে পরিচ্ছন্ন করার প্রতিশ্রুতি দেন। প্রতিদিন নগরবাসীর ব্যাপক কাজ করা হলেও অন্যান্য প্রশাসনের প্রয়োজনীয় সহযোগিতা না পাওয়ায় আক্ষেপ প্রকাশ করেন তিনি। তিনি বলেন,এ শহরের মানুষ আমার পাশে না থাকলে আমি কিছুই করতে পারতাম না।  

আরও পড়ুন :নৌকা ছাড়া নির্বাচন নয় : আইভী