নারায়ণগঞ্জ টাইমস | Narayanganj Times

শনিবার,

১৯ জুন ২০২১

কুমুদীনির শ্রমিক ইস্যুতে সেলিম ওসমান ও ইসমাইলের মধ্যে বাদানুবাদ

নারায়ণগঞ্জ টাইমস:

প্রকাশিত:০০:১০, ৯ জুন ২০২১

কুমুদীনির শ্রমিক ইস্যুতে সেলিম ওসমান ও ইসমাইলের মধ্যে বাদানুবাদ

শ্রম আইন অনুযায়ী প্রাপ্য পাওনা কিংবা পুনর্বাসনের দাবিতে আন্দোলনরত নারায়ণগঞ্জের কুমুদীনি ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট অব বেঙ্গল লিমিটেডের জুট প্রেসে কর্মরত শ্রমিকদের দাবি-দাওয়া নিয়ে জেলা প্রশাসকের কক্ষে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার ( জুন) দুপুরে জেলা প্রশাসকের কক্ষে জেলা প্রশাসক মো. মোস্তাইন বিল্লাহ উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেন জেলা পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম, ব়্যাব-১১ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্ণেল তানভীর মাহমুদ পাশা, নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি খালেদ হায়দার খান কাজল, মহানগর যুবলীগের সভাপতি ব্যবসায়ী নেতা শাহাদাত হোসেন সাজনু, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শওকত হাশেম শকু৷ শ্রমিকদের পক্ষে তাদের আইনজীবী শ্রমিক নেতা অ্যাড. মাহবুবুর রহমান ইসমাইল, কুমুদিনীর শ্রমিক শহরের খানপুরের উত্তর কুমুদিনা বাগানের বাসিন্দা মো. জুয়েল, মো. নাসির প্রমুখ৷

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সামনে কথা বলেন এমপি একেএম সেলিম ওসমান৷ সময় সাংবাদিকদের সামনে কথা বলার  তিনি শ্রমিক নেতা আইনজীবী মাহবুবুর রহমান ইসমাইলকে ডাকেন৷ তখন সাংবাদিকদের সামনে কিছুই বলেননি ইসমাইল৷ সাংসদের কথা বলা শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাদা করে কথা বলেন মাহবুবুর রহমান ইসমাইল৷

ইসমাইল অভিযোগ করেন, শ্রমিকদের পক্ষে একটি কথাও বলেননি সাংসদ সেলিম ওসমান৷ এমনকি বৈঠকে শ্রমিকদের আইনজীবী হিসেবে তাকেও তাদের দাবি-দাওয়া প্রসঙ্গে কথা বলতে দেয়া হয়নি৷ তিনি জানান, নারায়ণগঞ্জ- আসনের এমপি যে নিদের্শনা দিয়েছে সেই নিদের্শনাটা সম্পুর্ণ মালিক পক্ষের। শ্রমিক পক্ষের নিদের্শনা উনি দেয় নাই। শ্রমিকদের যে প্রাপ্য পাওনার বিষয়টা বলা হয়েছিলো আমি আইনগত ভাবে তা তুলে ধরেছিলাম, এমপি সাহেব আমাকে সেটা পড়তে দেয় নাই। এমপি নিদের্শনা দিয়েছেন ২৫ তারিখ থেকে উচ্ছেদ করতে হবে। কুমুদিনি একটা ভালো মানের প্রতিষ্ঠান হওয়ার পরও হাসপাতাল করার আড়ালে শ্রমিকদের যে ৩০-৪০ বছরের পাওনা সেখান থেকে বঞ্চিত করার জন্য তারা আজকে এই কৌশল নিয়েছে

 মাহবুবুর রহমান ইসমাইলের এমন বক্তব্য অদূরে থাকা সাংসদ সেলিম ওসমান শুনছিলেন৷ অ্যাড. ইসমাইলের কথা শুনে তার দিকে তেড়ে যান সেলিম ওসমান৷ এসময় সেলিম ওসমান বলেন, ওইখানে আইন প্রশাসন, জেলা প্রশাসন, এমপি ওই জায়গায় সিদ্ধান্ত নিয়েছে আমরা আইনে যাচ্ছি না। সেখানে সমঝোতা হয়ে গেছে। আপনি আমার প্রশাসনকে অপমান করছেন এখন। আমার কথার উপর রায় দিয়েছে প্রশাসন। তোমাকে আমি দায়িত্ব দিয়েছি তারা যদি শ্রমিক হয় পেপার সাবমিট করে আমাকে দেখাওএক পর্যায়ে তাদের মধ্যে বাদানুবাদ শুরু হয়।

ভিডিও লিঙ্কএখানে ক্লিক করুন

উল্লেখ্য, গত ফেব্রুয়ারি মাসে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কুমুদিনি ওয়েলফেয়ার ট্রাষ্টের প্রস্তাবিত ক্যান্সার হাসপাতালের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

 

সম্পর্কিত বিষয়: