নারায়ণগঞ্জ টাইমস | Narayanganj Times

বুধবার,

২৯ মে ২০২৪

গরম-লোডশেডিংয়ের সুযোগে নারায়ণগঞ্জে অতিরিক্ত দামে বিক্রি হচ্ছে চার্জার ফ্যান

নারায়ণগঞ্জ টাইমস:

প্রকাশিত:১৫:১৭, ২৪ এপ্রিল ২০২৪

গরম-লোডশেডিংয়ের সুযোগে নারায়ণগঞ্জে অতিরিক্ত দামে বিক্রি হচ্ছে চার্জার ফ্যান

নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় তাপদাহের সঙ্গে বিদ্যুতের লোডশেডিংও বেড়েছে। অসহ্য গরম থেকে একটু স্বস্তি পেতে মানুষ ভিড় করছেন চার্জার ফ্যান ও এসির দোকানে। আর চাহিদা ও বিক্রি বেড়ে যাওয়ার সুযোগে এসব পণ্যে বাড়তি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন  শহরের ডিআইটির ব্যবসায়ীরা।

 

মোক্তার মিয়া নামের এক ক্রেতা অভিযোগ করে বলেন, গত বছর সাড়ে ৫ হাজার টাকা দিয়ে কিনেছিলাম। কিন্তু এবার দেখছি সাড়ে ৮ হাজার টাকা। মানে তিন হাজার টাকা বেশি। বাজার সিন্ডিকেটের কারণেই দামটা বেড়েছে। প্রত্যেকটা ফ্যানের দাম বেশি। 

 

তবে দিগুন দামে ফ্যান বিক্রি করছেন এমন বিষয়ে জানতে চাইলে ডিআইটি আল আমিন ইলেকট্রনিক দোকানের মালিক হৃদয় ও তার কর্মচারী ওই কাস্টমার এবং সাংবাদিকদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন। 

 

সরজমিনে নারায়ণগঞ্জ শহরের ডিআইটি ইলেকট্রিক মার্কেট, নারায়ণগঞ্জ ক্লাব মার্কেট, কালীরবাজারসহ বিভিন্ন মার্কেটে চার্জার ফ্যানের চাহিদা বেড়েছে দশগুন। এছাড়া এসির চাহিদা বেড়েছে অন্তত চারগুন। 

 

বিক্রেতারা জানিয়েছেন চার্জার ফ্যানের দাম উঠানামা করলেও এসির দাম মানভেদে ২ থেকে ৩ হাজার টাকা বেড়েছে।

 

আর মার্কেটে ফ্যান কিনতে আসা হাসান আহমেদ জানান, গরমে ফ্যানের চাহিদা বেড়েছে, সেই সঙ্গে দামও বাড়িয়ে দিয়েছেন বিক্রেতারা। তারা বলছেন, সবকিছুর দাম বেড়েছে। বেশি দাম দিয়ে কিনতে হচ্ছে, তাই বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে।

 

শহরের ডিআইটি একটি ইলেকট্রনিক্স পণ্যের দোকানে চার্জার ফ্যান কিনতে আসা বিথী আক্তার বলেন, গত কয়েকদিন গরমের সঙ্গে ৭-৮ ঘণ্টার লোডশেডিংয়ে অতিষ্ঠ হয়ে গেছি। ফ্যানের দাম আগের চেয়ে অনেক বেড়ে গেছে। তারপরও পরিবারে শিশু ও বয়োবৃদ্ধের কষ্টের কথা চিন্তা করে ফ্যান কিনতে হচ্ছে। 

 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জে তীব্র গরমের সঙ্গে পাল্লা দিয়েই বাড়ছে লোডশেডিং। ২৪ ঘন্টার ৫-৬ বার বিদ্যুৎ চলে যাওয়ার করনে অনেকেরই নির্ঘুম রাত কাটাতে হচ্ছে। বিদ্যুৎ বার বার যাওয়ার জন্য লেখাপড়ায় ব্যাঘাত ঘটছে শিক্ষার্থীদের। গরমের মধ্যে লোডশেডিং থেকে কিছুটা স্বস্তি পেতে বিকল্প হিসেবে চার্জার ফ্যানের, লাইটারের দিকে ঝুঁকছে মানুষ। গত কয়েকদিনে জেলা জুড়ে ইলেকট্রনিক দোকানগুলোতে বেড়েছে লাইট ও চার্জার ফ্যানের বিক্রিও।

 

দোকানিরা জানান, গত এক সপ্তাহ ধরে লাইট ও চার্জার ফ্যানের চাহিদা বেড়েছে। দামও একটু বেশি। চাহিদা অনুযায়ী সরবরাহ কম ফ্যানের। প্রতিদিনই অনেক ফ্যান বিক্রি হচ্ছে। চায়না মিনি ফ্যানগুলো বেশি চলছে। স্কুলছাত্ররা এ ফ্যানগুলো বেশি কিনছে। 

 

বিভিন্ন ইলেকট্রনিক দোকানে খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, ইলেকট্রনিক দোকানে ক্রেতাদের প্রচুর ভিড়। তাদের চাহিদা মেটাতে ব্যস্ত সময় পার করছেন মালিক ও কর্মচারীরা। ঘন ঘন লোডশেডিং হওয়ায় দোকান গুলোতে অনেক চাপ পড়েছে। আগে যেখানে দিনে ২ থেকে ৩টি চার্জার ফ্যান বিক্রি হতো, সেখানে বর্তমানে দিনে ১৫ থেকে ২০টি বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া, বাল্ব ও চার্জার লাইটের বিক্রি বেড়েছে পাঁচ থেকে ১০ গুণ। চার্জার ফ্যানের দাম চলতি সপ্তাহে ৩শ’ থেকে ৪শ’ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে।

 

এদিকে তাপপ্রবাহে নাভিশ্বাস উঠেছে শহর ও শহরের বাইরের মানুষের। ফ্যান, এসির পাশাপাশি অনেকে খুঁজছেন আইপিএস। ক্রেতাদের অভিযোগ, এই সুযোগে ফ্যানের দাম দেড় গুন বেশি নিচ্ছেন বিক্রেতারা। 

 

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক দোকানি বলেন, তীব্র তাপদাহের কারণে কোম্পানিগুলো ফ্যানের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। আর চাহিদা অনুযায়ী মালও পাচ্ছি না। এক সপ্তাহের ব্যবধানে ২ হাজার ৩০০ টাকার চার্জার ফ্যান ৫ হাজার টাকারও বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। আমরা অসহায় সিন্ডিকেটের কাছে।

 

শহরের নারায়ণগঞ্জ ক্লাব মার্কেটের ইলেকট্রিক ব্যবসায়ী এইচ এম সৌরভ বলেন, নিয়মিত যে চাহিদা ছিল তার থেকে চার্জার ফ্যানের চাহিদা ৯০ ভাগ বেড়ে গেছে, গরমের জন্য। দাম বেশী রাখার সুযোগ নেই, নির্দিষ্ট দামেই পণ্য বিক্রি করা হচ্ছে। 

 

শহরের ওয়ালটন প্লাজার ইনচার্জ বলেন, চার্জার ফ্যান ও এসি প্রচুর সেল হচ্ছে। এসির অনেক চাহিদা আছে। অনেকেই এসে দেখে যাচ্ছে যে পরে নেবে। প্রচুর গ্রাহক আসতেসে।

 

এদিকে ফ্যান-এসি ও আইপিএসের বাজার নিয়ন্ত্রণের রাখতে নিয়মিত বাজার তদারকির দাবি জানিয়েছেন ক্রেতারা।

এ বিষয়ে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর নারায়ণগঞ্জ কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো: সেলিমুজ্জামান জানান,  মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) ডিআইটি মার্কেটের বিভিন্ন ইলেক্ট্রনিক্স েপন্য বিক্রির দোকানে মনিটরিং করা হয়েছে। অতিরিক্ত দামে চার্জার ফ্যান বিক্রি করার অপরাধে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনের ৪৫ ধারায় এক দোকানীকে জরিমানা করা হেয়ছে। পাশপাশি অতিরিক্ত দামে যাতে চার্জার ফ্যান বিক্রি করা না হয় এসময় ব্যবসায়িদের সতর্ক করা হয়েছে।

সম্পর্কিত বিষয়: