নারায়ণগঞ্জ টাইমস | Narayanganj Times

সোমবার,

০২ আগস্ট ২০২১

লিঙ্করোড জুড়ে দুর্গন্ধযুক্ত পাহাড়, পথচারীদের ভোগান্তি

নুসরাত জাহান সুপ্তি

প্রকাশিত:২১:২১, ২৬ জুন ২০২১

লিঙ্করোড জুড়ে  দুর্গন্ধযুক্ত পাহাড়, পথচারীদের ভোগান্তি

দৃষ্টিনন্দন সবুজের হাতছানি, বৃক্ষরাজি, পাখ-পাখালির কলরবে মুখরিত চারদিক, বুনো ফুলের সুভাস। এইতো পাহাড়। বৈচিত্র্যময় পাহাড়। পাহাড়ের নান্দনিক সৌন্দর্যের এমন নয়নাভিরাম দৃশ্য মন কাড়ে যে কারো। পাহাড়ের এমন চিত্র হলেও ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডে চলাচলকারীদের কাছে মিলছে ব্যতিক্রম এক পাহাড়ের দেখা। কিন্তু সেই পাহাড়ে সৌন্দর্যের পরিবর্তে বর্জ্যরে সমাহার।

 

ফুলের সুভাসের বিপরীতে দূর্গন্ধ। পাহাড় থেকে বর্জ্য পচে ছড়াচ্ছে দম বন্ধ হয়ে যাওয়ার মতো দুর্গন্ধ। সড়কের দুই পাশে এমন ছোট-বড়অসংখ্যক পাহাড়ের কারণে চরম ভোগান্তিতে রয়েছে পথচারীরা। অসহনীয় হয়ে উঠেছে এই সড়কের পরিবেশ।


শনিবার (২৬ জুন) ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংকরোডে পথচারীদের  এরূপ ভোগান্তির দৃশ্য চোখে পড়ে। সড়কটি প্রয়োজনের তুলনায় ক্ষীণ হওয়ায় সড়কটি ৪ লেন থেকে ৬ লেনে ঊন্নতীকরণ প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। ৮.১৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে এই সড়কটি সাইনবোর্ড থেকে চাষাঢ়া পর্যন্ত ৬ লেনে উন্নতীকরণ করা হবে।

 

সড়কের দুইপাশে কয়েকবছর যাবৎ একটানা বর্জ্য ফেলা হচ্ছে। সাইনবোর্ড থেকে চাষাঢ়া পর্যন্ত সড়কের পাশর্^বর্তী অধিকাংশ স্থানে বর্জ্য ফেলা হয় বিধায় বর্জ্য অপসারণের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। তবে জমে থাকা বর্জ্য উঠিয়ে লিংক রোডে গড়ে তুলছে বড় বড় স্তূপ । এক একটি স্তূপ ছোট ছোট পাহারের ন্যায়। মাস পেরুলেও হচ্ছে না বর্জ্য অপসারণ। 


 
ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংকরোডের পাশেই রয়েছে জেলার একাধিক গুরুত্বপূর্ন স্থাপনা। জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, জেলা ও দায়রা জজ আদালত, সিভিল সার্জন অফিস, পুলিশ সুপারের কার্যালয়, পিবিআই অফিস, জেলা কারাগার, বিজিবি-৬২, পরিবেশ অধিদফতর, মাদক নিয়ন্ত্রন অধিদফতর, জেলা পরিষদ, যুব উন্নয়ন অধিদফতর, গণপূর্ত অধিদফতর, পাসপোর্ট অফিস, বিআরটিএ অফিসসহ একাধিক গুরুত্বপূর্ণ সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান অবস্থিত। প্রতিদিন লক্ষ লক্ষ মানুষ এ সড়ক দিয়ে যাতায়াত করেন। পরিত্যক্ত ময়লা পঁচে দুর্গন্ধ ছড়িয়ে নাভিশ্বাস উঠে যায় পথচারী ও এলাকাবাসীর।


খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়াম নিকটবর্তী এলাকার বাসীন্ধা মো.জামান। তিনি বলেন, স্টেডিয়ামের সামনের রাস্তায় আগে বিভিন্ন এলাকার গৃহস্থালি বর্জ্য ফেলা হইতো। সড়ক ৬ লেন হবে শুনে ভাবলাম রাস্তা পরিষ্কার হবে। এখন দেখি মাটি থেকে ময়লা উঠাইয়া পাহাড় বানায় রাখছে। ময়লা সড়ানোর কোন খবর নাই। পুরা রাস্তার ময়লা উঠায় উঠায় ছোট ছোট পাহাড় বানায় রাখছে। বাড়ছে মশা-মাছি। রোদে শুকায় বৃষ্টিতে ভিজে আবার গন্ধ বের হয়। 


অপর একজন ভুক্তভোগী পথচারী বলেন, সাইবোর্ডের পর থেকে শুরু হয়, একটু পর পরই ময়লার গন্ধ। মাঝে মধ্যে দুগর্ন্ধ এত তীব্র যে বমি চলে আসে প্রায়। 


নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জেলা পরিবেশ অধিদফতরের একজন কর্মচারী বলেন, বর্জ্য সড়ানোর কোন উদ্যোগ দেখছি না। পরিবেশ অধিদফতরের সামনেই পরিবেশ দূষণের ব্যবস্থা করো রাখছে। 
 
নারায়ণগঞ্জ সড়ক ও জনপদের সূত্রমতে, সড়কটি প্রায় ১২৯ ফুট প্রসস্থ হবে। সড়ক ৬ লেনে উন্নীতকরণ প্রকল্প বাস্তবায়নে ব্যয় হবে ৪৪৯ কোটি ৫৮ লাখ টাকা। সড়কটি ছয় লেনে উন্নীতকরণের কাজে এনডিই-টিবিএল-এইচটিবিএল-জেভি নামক যৌথ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সাথে গত ৯ ফেব্রুয়ারি সড়ক ও জনপথ অধিদফতর চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। প্রকল্প বাস্তবায়নের মেয়াদ ২০২২ সালের জুন পর্যন্ত।
 
নারায়ণগঞ্জ সড়ক ও জনপদের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী সাখাওয়াত হোসেন সড়কের বর্জ্য অপসারণের বিষয়ে বলেন, লিংক রোডের দুই পাশের একাধিক স্থানে নিয়মিত বর্জ্য ফেলে সড়কের দুই পাশ ভরাট করে রাখা হয়েছে। লিংক রোড ৬ লেনে উন্নতীকরণ কাজ শুরু করার পূর্বে  এসব বর্জ্য অপসারণ করা জরুরি।

 

এজন্য সড়ক থেকে বর্জ্য উঠানো হচ্ছে। এই বিপুল পরিমাণ বর্জ্য যেকোন জায়গায় ফেললে পরিবেশ দূষণ হবে। আমরা আগামী সপ্তাহে ঢাকা সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্ন বিভাগের সাথে এ বিষয়ে যোগাযোগ করব। তাদের সাথে আলোচনা করে বর্জ্য অপসারনের ব্যবস্থা করা হবে।