নারায়ণগঞ্জ টাইমস | Narayanganj Times

শুক্রবার,

২১ জুন ২০২৪

রূপগঞ্জে স্কুলছাত্র সানি হত্যা মামলার প্রধান আসামি গ্রেপ্তার

নারায়ণগঞ্জ টাইমস

প্রকাশিত:২২:৫৯, ২৫ মে ২০২৪

রূপগঞ্জে স্কুলছাত্র সানি হত্যা মামলার প্রধান আসামি গ্রেপ্তার

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে স্কুলছাত্র মাহাবুব হোসেন সানিকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় মামলার প্রধান আসামি রাজিব (২১) কে  গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-১১।

শনিবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়। এরআগে শুক্রবার (২৪ মে) গোলাকান্দাইল নতুন বাজার এলাকা থেকে তাকে  গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত আসামি রাজিবকে রূপগঞ্জ থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।  

র‌্যাব জানায়, পূর্বের ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে গত ২ আগস্ট সন্ধ্যা সারে ৭টার দিকে রূপগঞ্জের গোলাকান্দাইল দক্ষিণপাড়া নতুন বাজার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে পাকা রাস্তার উপর রাজিব (১৯), মোঃ মাহফুজ (১৮), মোঃ মাসুম মিয়া (২৮), মোঃ আল-আমিন (২৪), রনি মিয়া (২২), সোহান মিয়া (১৮), আরিফ হোসেন (২০), রাসেল মিয়া (২৬), আরিফ হোসেন (২১), পারভেজ (২২), এনামুল (২০), জাহেদ (১৮), জাকারিয়া (২২), শরীফ মিয়া (২২), মোস্তাকিন (২০), মোবারক (২০), আরমান (১৮), রবিন (২০), ইসমাইল (২৫) এবং রাজন’সহ অজ্ঞাতনামা ৭/৮ জন পূর্ব পরিকল্পিতভাবে জোটবদ্ধ হয়ে হাতে ধারালো চাকু, ক্রিজ, লোহার রড, রামদা, চাপাতি ইত্যাদিসহ ভিকটিম মাহাবুব হোসেন সানি (১৭)’কে এলাপাতাড়ীভাবে মারপিট করে।

এসময় মামলার প্রধান আসামি রাজিব ভিকটিমের বাম পাশে পেট বরাবর ধারালো ক্রিজ দিয়ে আঘাত করে, যাতে করে ভিকটিম সানি ঘটনাস্থলেই মারা যায়। আসামিরা ভিকটিমের সাথে থাকা মোঃ ইমন (১৯), সাজ্জাদ মিয়া (১৯) এবং সায়েম (১৮)’কেও এলোপাতাড়ীভাবে কুপিয়ে গুরুতর রক্তাক্ত জখম অবস্থায় ফেলে রেখে পালিয়ে যায়।

পরে ভিকটিমের পিতা ভিকটিম মাহাবুব হোসেন সানির মৃত দেহ এলাকায় নিয়ে আসে। পুলিশ খবর পেয়ে মৃত মাহাবুব হোসেন সানির লাশের সুরতহাল রিপোর্ট প্রস্তুত করে ময়না তদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেন। 

জখমী অন্যান্য ভিকটিমদের আত্মীয় স্বজন প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য ইউএস বাংলা হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাদেরকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। ঘটনার পরের দিন ৩ আগস্ট ভিকটিম এর পিতা মোঃ মিল্লাত হোসেন (৪৩) রূপগঞ্জ থানায় আসামীদের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।