নারায়ণগঞ্জ টাইমস | Narayanganj Times

শনিবার,

০৪ ডিসেম্বর ২০২১

কথাশিল্পী সাদত আল মাহমুদের আজ ৪৫তম জন্মদিন

নারায়ণগঞ্জ টাইমস

প্রকাশিত:১৭:১০, ১ নভেম্বর ২০২১

কথাশিল্পী সাদত আল মাহমুদের আজ ৪৫তম জন্মদিন

নিরহংকারী লেখক সাদত আল মাহমুদের আজ ৪৫তম জন্মদিন। ‘রাজাকার কন্যা’ ও ‘এক আনা মন’ এরকম অসংখ্য জনপ্রিয় বইয়ের লেখক সাদত আল মাহমুদ। দুই বাংলায় তার বইয়ের জনপ্রিয়তা রয়েছে। এ বছর ভারতের শীর্ষস্থানীয় প্রকাশনা সংস্থা “আত্মজা” প্রকাশনী হতে ইতিহাস নির্ভর উপন্যাস “এক আনা মন” প্রকাশিত হতে যাচ্ছে।

 

প্রচারবিমুখ এই লেখক ১৯৭৬ সালের ১ নভেম্বর টাঙ্গাইল জেলার গোপালপুরে জন্মগ্রহণ করেন। চার ভাই ও দুই বোনের মধ্যে তিনি মেজো। স্ত্রী ও কন্যা সায়মা মাহমুদকে নিয়ে ঢাকায় বসবাস। সাদত আল মাহমুদ ১৮ বছর বয়সে লেখালেখি শুরু করেন। তার ছাত্র জীবনে লেখা প্রথম উপন্যাস ‘শেষ বেলায়’।

 

এটি প্রকাশিত হয় ২০১৬ সালে। দেশপ্রেম ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে এই লেখক প্রায় দুই দশক ধরে নিরবচ্ছিন্নভাবে লিখে যাচ্ছেন। নিয়মিত উপন্যাস লেখা তার অদম্য ইচ্ছা। উপন্যাসের পাশাপাশি ছোটগল্প, নাটক, রম্যরচনা, প্রবন্ধ, ভৌতিক গল্প, শিশুতোষ, গোয়েন্দা ও ফ্যান্টাসি গল্প লিখেন।

 

নিরহংকারী এই লেখকের লেখা জনপ্রিয় ও নির্বাচিত বইগুলো হচ্ছে রাজাকার কন্যা, এক আনা মন, রমণীদ্বয়, প্রসব বেদনা, চিতার আগুনে, শিশুতোষ গগেনদার গল্পের ঝুড়ি, কিশোর হরর গল্প ভৌতিক ভূত ধরার অভিযান ইত্যাদি। তিনি দৈনিক সমকাল, মুক্তকণ্ঠ, খোলা কাগজ, বাংলাদেশের খবর, সকালের খবর, প্রতিদিনের সংবাদ, দেশ রূপান্তর ও ইনকিলাবসহ দেশের প্রধান প্রধান পত্রিকায় বিভিন্ন সম্মানজনক পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। বর্তমানে দৈনিক খোলা কাগজে কর্মরত আছেন।

 

পার্থিব সম্পদের মোহ তাকে আকৃষ্ট করতে পারেনি। লেখালেখিই তার ধ্যান, জ্ঞান ও সংসার বলা চলে। সমাজের বড় বড় অসঙ্গতি খুব সূক্ষ্মভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন তার লেখনির মধ্য দিয়ে। ১৯৯৭ এর দিকে নাটক লেখার কাজ শুরু করেন এবং ২০১৪ সাল পর্যন্ত বেশ কয়েকটি নাটক রচনা করেছেন তিনি।

 

তিনি বাংলাদেশ বেতারেও দীর্ঘদিন নাট্যকার হিসেবে কাজ করেছেন। ৩০ লাখ প্রাণের এবং দুই লাখ মা-বোনের ইজ্জত হরণের বিনিময়ে এদেশের জন্ম। সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জেল খেটেছেন।

 

দেশটা কীভাবে পেলাম তার সঠিক ইতিহাস বর্তমান প্রজন্মকে জানাতে আর সেই দায়িত্ববোধ থেকেই মুক্তিযুদ্ধের সঠিক তথ্য দিয়ে নতুন প্রজন্মের জন্য তিনি লিখেছেন বাংলাদেশের জনপ্রিয় মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক উপন্যাস “রাজাকার কন্যা”।

 

বাংলাদেশে তিনিই একমাত্র লেখক যিনি আবাল-বৃদ্ধা-বনিতা সবার মাঝে বই পড়ার অভ্যাস গড়ে তোলার জন্য দুই বছরে পাঁচ লক্ষাধিক টাকার বই বিনামূল্যে বিতরণ করেছেন এবং করে যাচ্ছেন। শুভ জন্মদিন প্রিয় লেখক।

 

আজকের এই দিনের সব ফুল-আনন্দ-হাসি শুধু আপনার জন্য। আমাদের পক্ষ থেকে সব ভালোবাসা-শ্রদ্ধা ও শুভকামনা আপনার জন্য। সুস্থ থাকুন, দীর্ঘজীবী হোন।

সম্পর্কিত বিষয়: