নারায়ণগঞ্জ টাইমস | Narayanganj Times

রোববার,

২৬ মে ২০২৪

কিডনি দিতে চান স্ত্রী, টাকার অভাবে পারছেন না

দুটি কিডনিই বিকল, বাঁচতে চায় আরিফুল

নারায়ণগঞ্জ টাইমস:

প্রকাশিত:১৮:০২, ৭ এপ্রিল ২০২৩

দুটি কিডনিই বিকল, বাঁচতে চায় আরিফুল

                 
আরিফুল ইসলাম। আটাশ বছরের টগবগে যুবক। অটোরিকশা চালিয়ে বৃদ্ধা মা, স্ত্রী-এক সন্তান নিয়ে চলছিল তার সংসার। কিন্তু দিন দিন পরিবারের ব্যয় বাড়তে থাকায় দু:চিন্তা বাড়ে আরিফুলের। স্বপ্ন দেখেন বিদেশ গিয়ে স্বজনদের মুখে হাসি ফুটাবেন। বৈদেশিক আয়ে পরিবারে স্বচ্ছলতা ফিরিয়ে আনবেন। পরিকল্পনা মতে বিদেশে যাওয়ার জন্য সব ব্যবস্থা করলেন। টাকাও জমা দিলেন। কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাস, হঠাৎ অসুস্থ্য হয়ে পড়েন আরিফুল। বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষার পর চিকিৎসক নিশ্চিত হলেন আরিফুলের দুই কিডনি একেবারে ড্যামেজ (বিকল) হয়ে গেছে। নিমিষেই সমস্ত স্বপ্ন ভেঙ্গে চুড়মাড় হয়ে যায়। সময় যতো যাচ্ছে মৃত্যুর ঝুঁকি ততই বাড়ছে তার। টাকার অভাবে চিকিৎসাও নিতে পারছেন না তিনি। 


এদিকে চিকিৎসক বলছেন, দ্রুত আরিফুলের কিডনি প্রতিস্থাপন করতে হবে। সময়মত তার কিডনি ডায়ালাইসিস করতে না পারলে বেঁচে থাকার সম্ভাবনা কম। সে ক্ষেত্রে তার কিডনি নিয়মিত ডায়ালাইসিস কিংবা পরিবর্তন করার কোনও বিকল্প নেই। অর্থকরি না থাকায় তাও এখন পেরে উঠছেন না আরিফুল। চিকিৎসা করাতে গিয়ে এখন পর্যন্ত ৬ থেকে ৭ লাখ টাকার বেশি খরচ হয়েছে। ভিটেমাটি থেকে শুরু করে সবকিছু বিক্রি করে আজ নিঃস্ব আরিফুল। হয়ে পড়েছেন ঋণগ্রস্থ। দ্রæত সময়রে মধ্যে অন্তত একটি কিডনি প্রতিস্থাপন করাতে না পারলে বাঁচানো যাবে না আরিফুল ইসলামকে। 


তার এমন পরিস্থিতে কাঁদছে মা, স্ত্রী-সন্তান। সন্তানের ভবিষ্যত ও স্বামীর জীবন বাঁচাতে নিজের কিডনি দিতে প্রস্তুত স্ত্রী ফারজানা আক্তার। কিডনি প্রতিস্থাপনের সমন্ত প্রক্রিয়া সম্পাদনও করেছেন। তবে অর্থাভাবে কিডনি প্রতিস্থাপন করাতে পারছেন না অসহায় পরিবারটি। কিডনি প্রতিস্থাপন থেকে শুরু করে আনুষাঙ্গিক চিকিৎসা ব্যয় হবে প্রায় ১০ লাখ টাকা। এত টাকা আরিফুলের পরিবারের পক্ষে কোনোমতেই জোগাড় করা সম্ভব নয়। 


বর্তমানে রাজধানীর শ্যামলিতে সিকেডি ইউরোলজী হাসপাতালে ডাঃ তানভীর রহমানের অধীনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন আরিফুল।তাকে দ্রæত কিডনি প্রতিস্থাপনের জন্য পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসক। নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের জালকুড়ি তালতলা এলাকায় ভাড়ায় বসবাস করেন আরিফুল। গ্রামের বাড়ি বগুড়ার কাহালু থানার কৃষ্ণপুর গ্রামে। বাবার নাম মৃত আফসার আলী।


কান্না জড়িত কন্ঠে আরিফুল ইসলামের বৃদ্ধ মা সাজেদা খাতুন বলেন, আমি এক হতভাগিনী মা। ছেলেই একমাত্র সম্বল। ভিটামাটি সবকিছু ছেড়ে দিয়ে ছেলের কিডনি রোগের চিকিৎসা চালাচ্ছি। ছেলের বউ কিডনি দিতে প্রস্তুত। কিন্তু অর্থের অভাবে তা আর পারছিনা। এখন অর্থও নেই চিকিৎসাও প্রায় বন্ধের পথে। আমি আমার ছেলের এত কষ্ট সহ্য করতে পারছিনা। টাকার অভাবে ছেলে আমার এখন মৃত্যু পথযাত্রী। সবার প্রতি অনুরোধ, আমার ছেলেকে বাঁচান। আপনাদের একটু সহযোগিতায় আমার ছেলের জীবনটা হয়তো বেঁচে যাবে। মা হিসেবে আর কিছু করতে না পারলেও যতদিন বেঁচে থাকবো আপনাদের জন্য দু-হাত তুলে দোয়া করবো।


অসুস্থ্য আরিফুল ইসলাম বলেন, আমার দু’টি কিডনিই বিকল এবং আমি ডায়ালাসিসের মাধ্যমে বেঁচে আছি। বর্তমানে ডাক্তারের পরামর্শ মতে আমার সুস্থ জীবনে ফিরে আসার একমাত্র উপায় হলো কিডনি প্রতিস্থাপন করা, যা অনেক ব্যয়বহুল এবং জটিল। আমার চিকিৎসার খরচ বহন করা আমার পরিবারের একার পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না।  সব হারিয়ে আমি এখন নিঃস্ব। জায়গা, জমি, ঘর, বাড়ি বলতে আমার কিছুই নেই। অটো রিকশা চালাতাম এখন আর তা পারিনা। আয় রোজগার সব বন্ধ। ডাক্তার যে পরামর্শ দিয়েছেন তাতে কিডনি পরিবর্তন করা তো দূরের কথা বরং কিডনি ডায়ালাইসিস করার সামর্থ আমার নেই। 


এ সময় জীবন বাঁচানোর করুণ আকুতি নিয়ে তিনি বলেন, আমি বাঁচতে চাই। সবাই সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলে হয়তো সুস্থ হয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে পারবো।


আরিফুল ইসলামের স্ত্রী ফারজানা আক্তার বলেন, পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যাক্তি ছিলেন আরিফুল। বর্তমানে সেলাইর কাজ করে জীবন জীবিকা চলছে তাদের। ঘরে ১৩ মাস বয়সের শিশু। কবে তাকে একটু দুধ কিনে খাইয়েছেন তাও মনে করতে পারছেন না। এমতাবস্থায় সন্তানের সুন্দর ভবিষ্যত গড়তে ও স্বামীর জীবন বাঁচাতে নিজের কিডনি দিতে সমস্ত প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি। কিন্তু অর্থাভাবে দিতে পারছিনা। স্বামীকে বাঁচাতে সমাজের বিত্তশালীদের এগিয়ে আসার জন্য বিনীত অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।


আরিফুল ইসলামের চিকিৎসার জন্য সমাজের হৃদয়বান ব্যক্তিবর্গ এবং প্রবাসীরা সরাসরি যোগাযোগ করতে ও আর্থিক সহযোগিতা পাঠাতে চাইলে : ০১৬৩০৬২৫১৮১ (পারসোনাল বিকাশ)।


এই ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নাম্বারে আরিফুল ইসলামের চিকিৎসার জন্য সহযোগিতা করা যেতে পারে। আরিফুল ইসলাম, রূপালী ব্যাংক, বি,বি রোড শাখা, নারায়ণগঞ্জ। সঞ্চয়ী হিসাব নম্বর- এফ ০৬৮৭০১০০১০৯২৮।
 

সম্পর্কিত বিষয়: