নারায়ণগঞ্জ টাইমস | Narayanganj Times

শনিবার,

২৬ নভেম্বর ২০২২

বেকাদায় আহবায়ক কমিটির পদত্যাগকারী ১৫ নেতা 

বহিস্কার ঠেকাতে কেন্দ্রীয় নেতাদের দ্বারে দ্বারে তারা!

প্রকাশিত:২১:৩০, ১ অক্টোবর ২০২২

বহিস্কার ঠেকাতে কেন্দ্রীয় নেতাদের দ্বারে দ্বারে তারা!

বেকাদায় পড়ে গেছে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির নবগঠিত আহবায়ক কমিটি থেকে পদত্যাগকারী ১৫জন নেতা। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের দেওয়া কমিটি মহানগর বিএনপির বর্তমান আহবায়ক কমিটিতে একটি ব্যর্থ ও পকেট কমিটি আখ্যা দিয়ে এবং সিনিয়র নেতাদের অবমূল্যায়ণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ তুলে তারা একটি বিশেষ মহলের ইন্ধনে কমিটি থেকে পদত্যাগ করেছিলেন তারা। 


এবার তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়ার পাশাপাশি বেশ কয়েক জনকে চূড়ান্ত ভাবে স্থায়ী বহিস্কার করার পরিকল্পনা করছেন দলটি। অবশেষে পদত্যাগকারীদের বেশ কয়েকজন তাদের চূড়ান্ত বহিস্কার ঠেকাতে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে তারা ধর্ণা দিচ্ছে বলে জানাগেছে।


পদত্যাগকারীদের বেশ কয়েক জন নেতার সাথে আলাপ কালে তারা জানান, মহানগর বিএনপির নতুন আহবায়ক কমিটিতে অনেক সিনিয়র নেতাদেরও বাদ দেওয়া হয়েছে। তারা সম্মান দিয়ে মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক এমপি এড. আবুল কালাম সাহেবকেও এক নাম্বার সদস্য রাখতে পারতো কিন্তা তা রাখেনি। 


অভিমান করেছি আমরা ঠিক আছে কিন্তু আমরা পদত্যাগ করতে চাইনি। আমাদের জোর করে পদত্যাগ করতে বাধ্য করা হয়েছে। আর তার নেপথ্যের কারিগর হলেন তৈমূর আলম খন্দাকার ও আতাউর রহমান মুকুল। তারা দুই জনেই কমিটি গঠনের পর থেকে সবাইকে ফোন করে ও মিটিং করে পদত্যাগ করতে বলেন।


তারা আরও বলেন, অবশেষে আমরা আমাদের ভূল বুঝতে পেরেছি আমরা বর্তমান কমিটিতে থাকতে চাই। আব্দুস সবুর খান সেন্টু, হাজী নুরুদ্দিন, আতাউর রহমান মুকুলসহ আমরা বেশ কয়েকজন নেতা বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে প্রায় দেখা করেছি।

 

আমরা ভূল বুঝতে পেরেছি আর দল থেকে যেনো আমাদের চূড়ান্ত ভাবে বহিস্কার না করে আমরা তাদের মাধ্যামে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের কাছে অনুরোধ করেছি। আমরা নতুন কমিটির নেতৃত্বে আগামী দিনের আন্দোলন সংগ্রামে রাজপথে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সকল কর্মসূচি পালন করবো।


জানাগেছে, গত রোববার (১৮ সেপ্টেম্বর) ছিলো দেশব্যাপী বিএনপির কেন্দ্রীয় কর্মসূচি। ঔইদিন বিকেল তিনটায় চাষাঢ়া শহীদ মিনারে মহানগর বিএনপির বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেন। নতুন কমিটির জন্য এটি ছিলো একটি চ্যালেঞ্জিং কর্মসূচি। 


এইদিন বিকেলে  তৈমূর আলম খন্দকারের মাসদাইরের বাড়িতে হঠাৎ করে নাম মাত্র জেলা ওলামা দলের সভাপতি মুন্সী শামসুর রহমান বেনু ও নিহত যুবদল নেতা শাওনের জন্য দোয়া ও মিলাদ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে মহানগরের নতুন কমিটির নেতাদের নিয়ে বৈঠক করে বিএনপির বহিস্কৃত নেতা তৈমূর আলম। 


বৈঠক শেষে মহানগর বিএনপির নতুন কমিটির ১৫জনের পদত্যাগের ঘোষণা দেওয়ান তিনি। এবং তাদের সবার কাছ থেকে পদত্যাগ পত্রের স্বাক্ষরও তৈমূর আলম। তাদের নিজেদের পদত্যাগ পত্র কেন্দ্রে পাঠিয়েছেন এমনটাই জানাগেছে।


আরও জানাগেছে, নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির নবগঠিত আহবায়ক কমিটি থেকে ১৫নেতার পদত্যাগের পিছনে নাটের গুরু ছিলেন বিএনপির বহিস্কৃত নেতা এড. তৈমূর আলম খন্দকার। তৈমূর আলমের ইশারা ও ইঙ্গিতেই তারা পদত্যাগ করতে চেয়েছিলেন বলে অভিযোগ উঠেছে।


নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির নবগঠিত কমিটিকে একটি ব্যর্থ ও অকার্যকর করতে ধ্বংসের কারিগর হয়ে মেতে উঠেছেন বিএনপির বহিষ্কৃত নেতা এড. তৈমুর আলম খন্দকার। যদিও তৈমুর আলম খন্দকার বর্তমানে বিএনপির কোন কমিটিতে নেই।


নিজের পাল্লা ভারী করতেই সদ্য ঘোষিত মহানগর বিএনপির কমিটির ১৫জন নেতাকে পদত্যাগ করার তৈমূর আলম খন্দাকার। 


পদত্যাগকারী নেতারা হলেন- মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক ও সর্বশেষ কমিটির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সবুর খান সেন্টু, যুগ্ম আহ্বায়ক হাজী নুরুদ্দিন, আতাউর রহমান মুকুল, আবুল কাউসার আশা, সদস্য এড. বিল্লাল হোসেন, আলমগীর হোসেন, শহিদুল ইসলাম রিপন, আমিনুল ইসলাম মিঠু, মনোয়ার হোসেন শোখন, ফারুক হোসেন, হাজী ফারুক হোসেন, হান্নান সরকার, আওলাদ হোসেন, এড. আনিসুর রহমান মোল্লা, এড. শরীফুল ইসলাম শিপলু।