নারায়ণগঞ্জ টাইমস | Narayanganj Times

শনিবার,

১৯ জুন ২০২১

নারায়ণগঞ্জে প্রেমের নামে প্রতারণার ফাঁদ

নারায়ণগঞ্জ টাইমস:

প্রকাশিত:২১:২৮, ১০ জুন ২০২১

নারায়ণগঞ্জে প্রেমের নামে প্রতারণার ফাঁদ

ভালোবাসার টানে নোয়াখালি থেকে নারায়ণগঞ্জে ছুটে আসে পারভেজ। প্রিয়সীকে বিবাহের পরিকল্পনা নিয়ে এলেও ভয়ংঙ্কর ফাঁদে পড়ে যায় সে। শিকার হয় প্রতারণার। আবার বন্দরে প্রেমিকার সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার হয়েছে দুই তরুণী। দুটি ভয়ঙ্কয় প্রতারণার ঘটনা ঘটলেও বেদনাদায়ক ঘটনাও আছে। প্রেমিকার সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছে প্রেমিকা।


এদিকে প্রেমের নামে প্রতারণার ফাঁদ দিন দিন বেড়েই চলছে। প্রযুক্তির সহায়তায় পুরোনো ধাঁচের অপরাধকে নানান রূপ দিচ্ছে প্রতারক চক্র। এ সকল চক্রের প্রধান হাতিয়ার হয়ে দাড়িয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। প্রতিনিয়ত নানা কৌশলে নারীরা পুরুষকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে প্রতারণা করছে। আবার পুরুষরাও নারীদের ফাঁদে ফেলছে। নারায়ণগঞ্জে পরপর দুটি প্রেমের ভয়ঙ্কর প্রতারণার ঘটনা ভালোবাসাকে কুলষিত করেছে। আতঙ্ক দেখা দিয়েছে প্রেমিক-প্রেমিকাদের মধ্যে। 


 ৮ জুন প্রেমিকা জুঁইয়ের সাথে বিয়ের উদ্দেশ্যে সোনারগাঁ উপজেলার মোগরাপাড়া চৌরাস্তার কাছাকাছি খন্দকার মার্কেটে আসেন পারভেজ। কিন্তু সেখানে গিয়ে হতবিহবল হয়ে পড়েন তিনি। প্রেমিকা তার কয়েকজন বন্ধুদের সাথে নিয়ে পারভেজকে মারধর করে সর্বস্ব লুটে নেয়। 


এ ঘটনায় ভুক্তভোগী পারভেজ সোনারগাঁ থানায় লিখিত অভিযোগ করে জানান, সোনারগাঁ পৌরসভার নোয়াইল গ্রামের আব্দুল জলিলের মেয়ে জুঁই। ফেসবুকের পরিচয়ে পরবর্তী দেড় বছর প্রেম চলাকালীন সময়ে নানা কৌশলে পারভেজের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেন জুঁই। ৭ জুন রাতে জুঁই তাকে বিয়ে করার জন্য চাপ দিলে তিনি ১৫ হাজার ৪০০ টাকা নিয়ে সোনারগাঁও চলে আসে।  


 একইদিন বন্দরে ঝালমুড়ি খাওয়ার কথা বলে বন্ধুর বাড়ীতে ডেকে নিয়ে দুই প্রেমিক দুই বান্ধবীকে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় ভূক্তভোগী ধর্ষিতা বাদী হয়ে তাদের কথিত প্রেমিকসহ ৫ জনের নাম উল্লেখ করে বন্দর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন। পুলিশ দুই ধর্ষক ও ধর্ষণের কাজে সহয়তা করার অপরাধে আরো ২ জনসহ মোট ৪ জনকে গ্রেপ্তার করে। একজন আসামী পলাতক রয়েছে। 


ঘটনার ৮ দিন পুর্বে নবীগঞ্জ গুদারা ঘাটে নারায়নগঞ্জ সদর থানার এম সার্কাস এলাকার টিটু মিয়ার ছেলে সিফাত হোসেন ও হাজীগঞ্জ এলাকার আব্দুল মান্নান মিয়ার ছেলে সিফাতের পরিচয় হয় মামলার বাদী ভুক্তভোগি তরুণী ও তার বান্ধবীর (১৭) সঙ্গে। পরবর্তী সময়ে উভয়ের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। ঘটনার দিন বিকেলে ওই তরুণী ও তার বান্ধবীকে মাজার দেখার জন্য  নবীগঞ্জ ঘাটে আসে। পরবর্তীতে নবীগঞ্জ ইসলামবাগ এলাকার আলাউদ্দিন মিয়ার বাড়ীতে ঝালমুড়ি খাওয়ার জন্য ডেকে নিয়ে যায় দুই বন্ধু তাদের দুই বান্ধবীকে। সেখানে নিয়ে ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর পূর্বক ধর্ষণ করে।


এদিকে প্রতারণার বাইরে বেদনাদায়ক ঘটনাও আছে। উল্লেখিত দুটি ঘটনার একদিন পূর্বে ফতুল্লায় প্রেমিকার সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়ে মর্মান্তিকভাবে মারা যায় আনিছুর রহমান নামক এক যুবক। ৭ জুন রাতে ফতুল্লার কুতুবাইলস্থ ইরান টেক্সটাইল সংলগ্ন রেহান উদ্দিন প্রধানের বাসার তৃতীয় তলার ছাদে ঘটনা ঘটে। নিহত আনিছুর রহমান স্থানীয় একটি ডাইং কারখানায় কাজ করতেন। এবং স্থানীয় একটি গার্মেন্টসে কর্মরত তরুণীর সঙ্গে ইশারায় কথোকপথন হতো তাদের মধ্যে। স্থানীয়দের ধারনা প্রেমিকার সঙ্গে হাতের ইশারা করাকালীন সময়ে অসাবধানতাবশত পাশ দিয়ে যাওয়া বিদ্যুতের লাইনে স্পৃষ্ট হয় আনিছুর রহমান  ঘটনাস্থলেই মারা যায়।

আরও পড়ুন : বাক-প্রতিবন্ধী সেজে সাহায্যের নামে মোবাইল চুরি

সম্পর্কিত বিষয়: