নারায়ণগঞ্জ টাইমস | Narayanganj Times

শুক্রবার,

২১ জুন ২০২৪

নারায়ণগঞ্জে একরাতে গ্রেপ্তার বিএনপির ৩৪ জনের তালিকা

নারায়ণগঞ্জ টাইমস:

প্রকাশিত:১৭:৫৭, ২৭ অক্টোবর ২০২৩

নারায়ণগঞ্জে একরাতে গ্রেপ্তার বিএনপির ৩৪ জনের তালিকা

নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে শুক্রবার ভোর ৬টা পর্যন্ত জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশসহ বিভিন্ন থানার সদস্যরা যৌথভাবে অভিযান চালিয়েছে। অভিযানে বিএনপির ৩৪ নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

বিএনপি নেতাদের অভিযোগ, রাজধানীতে অনুষ্ঠেয় ২৮ অক্টোবর শনিবারের সমাবেশে যোগ দিতে বাধা দেওয়ার জন্য পুলিশ তাদের লোকজনকে ধারাবাহিকভাবে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাতে আটককৃতদের মধ্যে ৩৪ হচ্ছেন- ফতুল্লা থানা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক মতিউর রহমান ফকির, কাশীপুর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড যুবদল নেতা জাহাঙ্গীর হোসেন, কাশীপুর ইউনিয়ন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ডালিম সিকদার, আড়াইহাজার উপজেলা যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক মাহাবুব রহমান, আড়াইহাজার উপজেলা বিএনপি কর্মী জাকির হোসেন, সোনারগাঁ উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়ন শ্রমিক দলের সভাপতি আনসার আলী মিয়া, রূপগঞ্জের কাঞ্চন পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ড যুবদলের সাধারন সম্পাদক মোঃ মোমেন, সোনারগাঁ পৌরসভা বিএনপির সহ-সভাপতি মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, রূপগঞ্জ থানা শ্রমিক দলের যুগ্ম আহবায়ক আমির হোসেন, ভুলতা ইউনিয়ন ৪ নং ওয়ার্ড বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন, আড়াইহাজার থানা যুবদল কর্মী মোঃ আলামিন মিয়া, রূপগঞ্জের চনপাড়া ১নং ওয়ার্ড যুবদলের সক্রিয় কর্মী মোঃ আলামিন, চনপাড়া ইউনিয়ন ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ মাহিনের বাবা (রাতে তার বাসায় পুলিশ মাহিনকে না পেয়ে তার বাবাকে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ), সোনারগাঁ জামপুর ইউনিয়ন বিএনপির সহ-সভাপতি আব্দুল লতিফ মেম্বার, সোনারগাঁ উপজেলা বিএনপির সহ-স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক আবুল কাসেম, বারদী ইউনিয়ন যুবদল নেতা মোঃ শামীম মিয়া, পিরোজপুর ইউনিয়ন যুবদল নেতা মোঃ আবুল হোসেন, বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি মোঃ নবী হোসেন, রূপগঞ্জের কাঞ্চন পৌরসভা যুবদল নেতা মোক্তার হোসেন, কাঞ্চন পৌরসভার ৫ নং ওয়ার্ড যুবদল নেতা সোলাইমান মিয়া, রূপগঞ্জের ভুলতা ইউনিয়ন ৭ নং ওয়ার্ডের সাবেক সাধারন সম্পাদক মোঃ আলমগীর হোসেন, আড়াইহাজার উপজেলা যুবদলের কর্মী মোঃ সাজোয়ার, চনপাড়া ইউনিয়ন বিএনপি নেতা হানিফ, চনপাড়া ৮ নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা জুলহাস, সিএনজি চালক নুরুল হক (সাধারণ চালক), ফতুল্লা থানা কৃষক দলের যুগ্ম আহবায়ক মামুন, কুতুবপুর ইউনিয়ন বিএনপি নেতা জাহাঙ্গীর, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা বিএনপি নেতা এনায়েত বিন আমান, শহিদুল ইসলাম, আবু জোবায়ের আরিয়ান, ছালাউদ্দিন, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক হারুনুর রশিদ হারুন, বিএনপি নেতা আরিফ প্রধান, মহানগর যুবদলের সাবেক নেতা মনোয়ার হোসেন শোখন।

জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক খোকন জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার রাতে গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে একজন সিএনজি চালক রয়েছেন যিনি বিএনপির রাজনীতির সাথে যুক্ত নন। বাকিরা বিএনপির রাজনীতির সাথে যুক্ত। 

নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশের মুখপাত্র অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) চাইলাউ মারমা জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে শুক্রবার ভোর পর্যন্ত জেলার সাতটি থানার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে যাদের আটক করা হয়েছে যাচাই-বাছাইয়ের পর বিস্ফোরক আইন ও নাশকতার অভিযোগে করা পুরনো মামলায় তাদের গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

 

বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির নির্বাহী সদস্য ও নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদ বলেন, রাজধানীতে অনুষ্ঠেয় আজকের সমাবেশে যোগ দিতে বাধা দেওয়ার জন্য পুলিশ আমাদের নেতাকর্মীদের আটক করছে। আটকে পর তাদের পুরনো মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে কারাগারে পাঠানো হচ্ছে। গত কয়েকদিন ধরে এটা করা হচ্ছে। এটা অত্যন্ত নিন্দীয় কাজ। তিনি আরও বলেন, বাড়ি-বাড়ি তল্লাশী আর গ্রেপ্তার করে মহাসমাবেশে নেতাকর্মীদের যোগদানের স্রোত ঠেকাতে পারবে না সরকার।